কাশ্মীর নিয়ে নিজের মন্তব্য প্রত্যাহার নয়, জানালেন মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ

কাশ্মীর নিয়ে নিজের মন্তব্য প্রত্যাহার নয়, জানালেন মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ

bangla Bengali news International

গত ৫ই আগস্ট ভারত সরকার কর্তৃক সংবিধানের ৩৭০ ধারা বিলুপ্ত করে কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিলের জের ধরে ভারত ও মালয়েশিয়ার মধ্যে বাণিজ্যযুদ্ধ শুরু হয়েছে। তবে কাশ্মীরিদের পক্ষে মালয়েশিয়ার যে অবস্থান তা পরিবতর্ন হবে না বলে সাফ জানিয়েছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ।

কাশ্মীর নিয়ে নিজের মন্তব্য প্রত্যাহার নয়, জানালেন মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ

সম্প্রতি নিউইয়র্কে অনুষ্ঠিত জাতিসংঘের সাধারণ সভায় অধিভেষণে বক্তব্য দেয়ার সময় কাশ্মীরিদের পক্ষে বলিষ্ঠ কণ্ঠে ভূমিকা রাখেন মাহাথির মোহাম্মদ। তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যিপ এরদোয়ানও কাশ্মীরিদের পক্ষে কথা বলেন।

বিষয়টি ভালো চোখে নেয়নি ভারত সরকার। সম্প্রতি মোদি তুরস্ক সফর বাতিল করে সেই অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন। অন্য দিকে মালয়েশিয়া থেকে পামওয়েল আমদানি বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে মোদি সরকার।

মোদি সরকারের এ সিদ্ধান্তকে বাণিজ্যযুদ্ধ হিসেবে দেখছে মালয়েশিয়া। কাশ্মীর ইস্যুতে ভারতের নেয়া সিদ্ধান্তের সমালোচনা থেকে বিরত না থাকার ঘোষণা দিয়েছেন মাহাথির মোহাম্মদ।
ভারতের এই পদক্ষেপকে মালয়েশিয়ার সঙ্গে একটি বাণিজ্য যুদ্ধ হিসেবে বর্ণনা করেছেন মাহাথির। চলতি বছর ভারতই মালয়েশিয়া থেকে সবচেয়ে বেশি পাম অয়েল ক্রয় করেছে।

মহাথির দেশের পার্লামেন্টের বাইরে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে বলেন, আমরা স্পষ্ট কথা বলি, যা বলি, তা বদলাই না বা ফিরিয়ে নিই না। সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে আমি যা বলেছি, সেটি হলো- জাতিসংঘের প্রস্তাবনা আমাদের সকলের মেনে চলা উচিত। অন্যথায় জাতিসংঘের কাজ কী?

কাশ্মীর প্রশ্নে ভারত ও পাকিস্তানের বিরোধের ব্যাপারে ১৯৪৮ ও ১৯৫০-এর দশকে একাধিক প্রস্তাব গৃহীত হয় রাষ্ট্রপুঞ্জের নিরাপত্তা পরিষদে, যেগুলির একটি হল, কাশ্মীরের ভাগ্য নির্ধারণে গণভোট হওয়া উচিত। সে প্রসঙ্গই তোলেন তিনি।
মুম্বইয়ের নিরামিষ ভোজ্য তেল কারবারীদের সংস্থা সলভেন্ট এক্সট্র্যাক্টরস অ্যাসোসিয়েশন অব ইন্ডিয়ার ডাকা মালয়েশিয়ার পাম তেল বয়কটের ডাকে কী প্রতিক্রিয়া হয়, তা খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থার কথা ভাববেন বলে জানান মহাথির। বলেন, এটা তো ভারত সরকার নয়, অতএব কীভাবে ওদের সঙ্গে কথা বলে বোঝানো যায় দেখতে হবে, কেননা ব্যবসা-বাণিজ্য দুতরফা ব্যাপার, বাণিজ্য নিয়ে সংঘাত-যুদ্ধ হওয়া ভাল নয়।

মালয়েশিয়ার সঙ্গে ব্যবসায়ীদের সংঘাত নিয়ে নয়াদিল্লি কোনও মন্তব্য করেনি এখনও পর্যন্ত।
ভারত সরকারের পরিসংখ্যান, ৩১ মার্চ শেষ হওয়া আর্থিক বছরে ভারতে মালয়েশিয়ার রপ্তানি হয়েছিল ১০.৮ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের, আমদানির পরিমাণ ছিল ৬.৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলার অর্থমূল্যের। ভারত ২০১৮-য় ছিল মালয়েশিয়ার তৃতীয় সর্বোচ্চ পাম তেল ও সংশ্লিষ্ট পণ্য রপ্তানি ক্ষেত্র, যার আর্থিক পরিমাণ ১.৬৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।

বাণিজ্য ঘিরে উত্তেজনা প্রশমনে গত সপ্তাহে মালয়েশিয়া ভারত থেকে অশোধিত চিনি ও মহিষের মাংস আমদানি বাড়ানোর কথা ভাবছে বলে জানায়। বিশ্বের সবচেয়ে বড় ভোজ্য তেল আমদানিকারক দেশ ভারত ইন্দোনেশিয়া থেকেও পাম তেল, আর্জেন্টিনা ও ব্রাজিল থেকে সয়া তেলও কেনে।
সূত্র : রয়টার্স।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *